Saturday, September 24, 2016

দাগনভূইয়াতে ঢাকা উত্তরের মেয়র - আনিসুল হক



দাগনভূইয়া প্রতিনিধিঃ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন মেয়র আনিসুল হক বলেন, আমি একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান থেকে আজ এ জায়গায় এসেছি। অনেকেই বলছেন, আমি নাকি অনেক বড়লোক। আমি সাধারণ মানুষের কথা বুঝবোনা। কিন্তু তারা জানে না যে, আমি সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের সংসার থেকে হাঁটি হাঁটি পা করে জীবনের এ জায়গায় এসেছি।
তিনি বলেন - আমি আড়াই বছর বেকার ছিলাম। যেদিন চাকরি পাই সেদিন বাবা বললেন, জীবনে কী করতে চাও। আমি অবাক হলাম। প্রশ্ন করলাম কী করতে চাই মানে? উনি (বাবা) বললেন, দাঁড়াও তোমার মাকে জিজ্ঞেস করে আসি।

তারপর তিনি বললেন, তুমি যে জায়গাতেই যাও না কেন, যত বড়ই হও না কেন ভালো থাকো, সৎ থাকো, মানুষের প্রতি বিনয়ী হও। আমি সেভাবেই চেষ্টা করছি। আনিসুল হক আরো বলেন, আমি কোনো অনেক বড় মানুষ হয়ে যাইনি। শুধু আপনাদের সঙ্গে পরিচয়ের জন্য এ কথাগুলো বলছি। জীবনে অনেক সংগ্রাম করেছি। আমার পেছনে আমার সবচেয়ে যে বড় শক্তি, সেটা হচ্ছে আমার মায়ের দোয়া। তিনি আরো বলেন, তিনটি সপ্তাহের মধ্যে জীবন কেন জানি বদলে গেছে। এটা কখনো স্বপ্ন ছিল না। আমার ৯২ বছরের বাবা মৃত্যুর পথযাত্রী। তিনিও এখন স্বপ্ন দেখছেন। আমার বউ, ভাইবোন তারাও এখন স্বপ্ন দেখছেন।

 আর আমার মধ্যে ধীরে ধীরে এই জায়গার স্বপ্ন অনুরণিত হচ্ছে। পথসভায় আগতদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমার মতো একটা মধ্যবিত্ত পরিবারের আনিসুল হক যদি মেয়র হওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারেন, তাহলে আপনারা প্রত্যেকে মায়ের দোয়া নিয়ে বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট হওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারেন। শুক্রবার বিকালে ঢাকা থেকে নোয়াখালীতে তার নিজ বাড়িতে যাবার সময় দাগনভূঞাতে সংবর্ধনাতে তিনি কথাগুলো বলেন। ফেনী জেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে দাগনভূঞাতে জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আবদুর রহমান বিকমের সভাপতিত্বে জেলা যুবলীগ সভাপতি দিদারুল কবির রতনের সন্ঞালনায়, প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রটোকল অফিসার আলাউদ্দিন নাসিম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি, মহিলা এমপি জাহানারা বেগম সুরমা।

শেয়ার করুন