Thursday, October 6, 2016

হায়রে মানুষের বিবেক, কেউ নির্যাতনের স্বীকার আর অন্যরা দেখে দেখে ভিডিও করে


এ কে আজাদঃ 
বর্তমানে আমরা এমন এক পৃথিবীতে বাস করি। যেখানে মানুষের সামান্য সহানুভূতি নেই অন্য মানুষের প্রতি। আগে আমরা দেখেছিলাম যখন কোনো মানুষ বিপদে পড়ে বা করো দ্বারা আক্রামনের স্বীকার হয়, তখন সবাই এসে আক্রান্ত ব্যাক্তি টিকে বাঁচায়। এখনতো এমন হয়ে গেছে যে কোন মানুষ বিপদে পড়লে সবাই তাকে রক্ষা না করে, ভিডিও করে বা ছবি তুলে সোসালমিডিয়া বা পেইসবুকে দিয়ে দেয়। আর এই ঘটনাটি ঘটলো সিলেটে এমসি কলেজের  খাদিজার বেলায়ও এর ব্যতিক্রম হয়নি। আমরা সিলেটে খাদিজার ভিডিও দেখে বুঝতে পারলাম, যে ব্যাক্তি ভিডিও করেছিলেন তিনি যদি ভিডিও না ধারণ করে খাদিজাকে সেই  কুক্ষাত সন্ত্রাসী হাত থেকে রক্ষা করতে পারতো, তাহলে খাদিজা এমন কঠিন নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতো।বরং রক্ষা না করে নির্মম সেই ভিডিও চিএ ধারণ করলো।

এই ভিডিও দেখে বুঝা যায় আজ আমাদের বিবেক কোথায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই আমি মনে করি আমরা যারা এইসব অপরাধ দেখার পর বাঁধা না দিয়ে ভিডিও বা ছবি তুলি,  মুলত আমরাই অপরাধী হবো। সেই দিনের ঘটনাটি দেখুন অপরাধী  বদরুল যখন খাদিজাকে আঘাত করেছে, আশেপাশে যারা দাঁড়িয়ে দেখতেছে এবং ভিডিও করতেছে তারা বদরুলের হাত থেকে খাদিজাকে রক্ষা করতে পারতো। আজ পৃথিবীতে শুধু এই এক খাদিজাকে নয় বরং এর আগে আমরা দেখেছি একটি শিশুকে চোরের অপবাদ দিয়ে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয় সেই সিলেটে।দিন দিন এধরনের ঘটনা বাড়তে আছে। আমরা আশা করি আগামীতে সিলেটে এমসি কলেজের খাদিজার এ ঘটনা থেকে,  আমাদের মধ্যে মনুষ্যত্ব বোধটুকু যেন জেগে উঠে।আর কত এমন নির্মম ঘটনা ঘটতে থাকবে, মানবতা জেগে উঠুক আর মানবতার জয়ী হউক।

শেয়ার করুন