Monday, October 24, 2016

ফেনী সোনাগাজীর স্থানীয় বাজারগুলোতে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগে রমরমা ব্যবসা!



সোনাগাজী প্রতিনিধিঃ 
ফেনী সোনাগাজী উপজেলায় সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা পলিথিন ব্যাগের ব্যবসা করে যাচ্ছে। আর তাদের এই ব্যবসার ফলে ওই এলাকায় পলিথিন ব্যবহার বেড়ে চলছে দিন দিন। সােনাগাজী উপজেলার কোথাও চটের ব্যাগের  ব্যবহার নেই। আমরা ওই এলাকায় গিয়ে দেখা পাই, সেখানে ধান, চালের চাতাল আড়ৎ, মুদি দোকান, বস্তার দোকান, কাঁচা বাজার, মাছের দোকান, ঔষধের দোকান,  হোটেলসহ ও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কঠিনভাবে চলছে পলিথিন ব্যাগ ও প্লাস্টিকের ব্যাগের ব্যবহার। আর এই জন্য দিন দিন বাড়ছে পরিবেশ দূষন। সমাজের  এক শ্রেণির অসাধু ও অসৎ ব্যবসায়ী অযথায় যুক্তি দেখিয়ে প্রশাসনের নাকের ডগায় পলিথিন ব্যাগের ব্যবসা ও ব্যবহার করে ক্রয়-বিক্রয় করে যাচ্ছে। এছাড়াও ভুষি, ধান, চাউল, আলু, আদা, মরিচ, খৈল, মৎস্য খাদ্যে পলিথিনের ব্যাগ ব্যবহার হচ্ছে  যার যেইরকম খেয়াল খুশি মত করে। জানা যায়, কোনো প্রকার লেভেল ছাড়া সীমান্ত পথে আসা পলিথিনের ছেয়ে গেছে সোনাগাজী উপজেলার বড় ছোট সব হাট বাজারে দোকান গুলোাতে।

স্থানীয় মুদি দোকানি নাছির উদ্দিন বলেন, পরিবেশ রক্ষার্থে যেখানে সরকার পলিথিন ব্যাগ নিষিদ্ধ করে পাটের ব্যাগ ব্যবহার করতে বলেছে ,নাগরিক হিসাবে রাষ্ট্রের আইন মান্য করতে আমরা বাধ্য। তবে সমাজের কিছু অসৎ ব্যবসায়ীরর কারণে তা করা সম্ভব হচ্ছে না। সোনাগাজীর মতিগঞ্জ, ভৈরব চৌধুরী, ডাক বাংলা বক্তারমুন্সি, সোনাপুর, ভোর বাজার, ওলামা বাজারসহ সর্বত্রে চটের ব্যাগের সাথে পলিথিন ব্যাগ বিক্রির মহৌৎসব চলছে বলে স্থানীয় লোক জন আমাদেরকে জানান। সোনাগাজী বাজারের বণিক সমিতির সভাপতি ডা. নুর নবী বলেন, আগে আমি ব্যবহার করতাম প্লাস্টিকের ব্যাগ, এখন চটের ব্যাগ করছি। পরিবেশের ক্ষতি হয় এমন কিছু  ব্যবহার তিনি চাননা। তাই তিনি ব্যবহার করছেন চটের ব্যাগ।

পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় প্লাস্টিক বা পলিথিনের ব্যাগ বর্জন করা উচিত সবার। আর এই বিষয়ে সমাজে গণসচেতনতা বৃদ্ধিতে সকলকে একযোগে প্রচারনার অনুরোধ জানান তিনি। এবং পাশাপাশি প্রশাসনের কঠোর নজরদারি ও আইনের যথাযথ প্রয়োগ দাবি করেন তিনি। চটের ব্যাগ বৃদ্ধি হোক, বর্জন হোক পলিথিন ও প্লাস্টিকের ব্যাগের ব্যবহার। রক্ষা হোক পরিবেশ গড়ে উঠুক পলিথিন মুক্ত সমাজ। সোনাগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিনহাজুর রহমান বলেন, সোনাগাজীর কোথাও পলিথিন ব্যাগ মজুদ আছে ও ব্যবহারের সন্ধান পেলে তৎক্ষনাৎ অভিযান চালানো হবে। এ ব্যাপারে সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।


শেয়ার করুন