Saturday, November 19, 2016

কে আমরা! আমাদের পরিচয় কি?


কে আমরা! আমাদের পরিচয় কি? এটা শুনার পর হয়তো অনেকে হাস্যরস করে বলবে, আপনি জানেন না! কে আমরা? আমরা সবাই মানুষ। কিন্তু এখানে- আমার প্রশ্ন! যদি আমরা মানুষ হই, তাহলে কেন একজন মানুষ আরেকজন মানুষের উপর অত্যাচার করি? মানুষ মানুষের উপর অত্যাচার করতে পারেনা। শুধুমাত্র অমানুষ মানুষের উপর আক্রমণ করে। তাইতো আমরা কথায় বলে থাকি, মানুষ হয়ে অমানুষের মত কাজ কেন কর? কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় হল আমরা যে মানুষ তাও আমরা ভুলে গেছি, আমাদের ভুলিয়ে দেয়া হয়েছে। এখানে আমি মুসলিম অমুসলিমদের পাথ্যক্য করছিনা, আমি শুধুমাত্র মানুষের কথা বলতেছি। 

প্রত্যেক মানুষের স্রষ্টা এক আল্লাহ, তিনি সব মানুষের রিযিকদাতা। নিয়ে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেনঃ পৃথিবীতে যা কিছু আছে সব কিছু সব মানুষের জন্য। এখানে শুধুমাত্র মানুষের কথা বলা হয়েছে, কোন নির্দিষ্ট জাতিকে বলা হয়নি। শুধু মানুষের কথা বলো হয়েছে। তাহলে মানুষের সজ্ঞা কি? মানুষের সজ্ঞা হলো যদি মানুষ হতে হয় তাহলে আমি অমানুষ নয়, আমি জীবজন্তু নই। আমি সব কিছুর উর্ধে। যদি এটাই মানুষের সংজ্ঞা হয় তাহলে মিয়ানমারের যারা মুসলিম হত্যা করছে তারা কি মানুষ? তারা মানুষ রুপি জীব জানোয়ার দানব। 

আজকে কোথায় গেল মানবাধিকার, কোথায় গেল সেই নাস্তিক বস্তুবাদের দালালগুলো, কোথায় গেল সেই মুসলিম নামধারী মুনাফিক নেতাগুলো, যে আল আরব থেকে সমগ্র মুসলিম মিল্লাতকে নেতৃত্ব দেয়া হত কোথায় গেল সেই নেতৃত্ব, উল্টোতো দেখি আল আরবের সৌদি গোত্র মুসলমানদের ধ্বসের জন্য প্রধানত দায়ী। সেই গোত্রবাদী সৌদি সরকার একটা প্রতিবাদ করতে দেখিনি বরং তারা অস্ত্র কিনলো ইরান ইরানে হামলা করার জন। বোদ্ধ ধর্মের মধ্যে লেখা আছে, “জীব হত্যা মহাপাপআর সেই বোদ্ধ ধর্মের লোকেরা সকল জীবের শ্রেষ্ঠ জীব সকল মানুষের মধ্যে সেরা মানুষ মুসলিমদের নির্মমভাবে হত্যা করছে। এগুলো মূলত ধর্মের নামে অধর্ম, কুধর্ম, উগ্রবাদ, জংগীবাদ। এই পৃথিবী আল্লাহ কোন একক জাতি,গোষ্ঠী সম্প্রদায়ের জন্য সৃষ্টি করেননি, এই পৃথিবী সকল মানুষের জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে।



প্রত্যেক মানুষ তার বিশ্বাস আদর্শ নিয়ে স্বাধীনভাবে চলার অধিকার আল্লাহ- দিয়েছেন(এই স্বাধীনতা মূলত আমাদের কলেমার দান) তাহলে কেন আজ এমন হচ্ছে? মূলত ধর্মের সঠিক শিক্ষা না থাকায়, ধর্মের নামে অধর্ম, কুধর্ম, উগ্রবাদ, জংগীবাদ, একক গোষ্ঠীবাদী শাসন ব্যবস্থা, একক ধর্মভিত্তিক উগ্রবাদী শাসন ব্যবস্থা এসকল হত্যা কান্ডের জন্য দায়ী।

আজকে যারা ধর্মীয় নেতা হিসেবে পরিচিত তারা নিজের স্বার্থের জন্য ধর্মকে বিক্রি করে দিয়েছে বিধায় এই করুন অবস্থার শিকার।

নিয়ে আরো অনেক লিখা থাকলেও আর লিখছিনা, কারণ আমরা অনেক কিছুই জানি বুঝি, শুধুমাত্র হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করিনা, বাস্তবতা বুজতে চেষ্টা করিনা। সবশেষে একটা কথা বলব, সবার উপরে মানুষ সত্য তাহার উপরে আর কিছুই নাই(মানব সেবা সবচেয়ে বড় ইবাদত) আসুন আমরা সকল ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবার প্রাথমিক পরিচয় মানুষ হিসেবে বসবাস করি।

শেয়ার করুন