Wednesday, January 25, 2017

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর ঘিরে তিস্তায় পানি নিয়ে আবারও আশায় বুক বাঁধছে বাংলার মানুষ



সারাদেশঃ
 শেখ হাসিনার ভারত সফর ঘিরে আবারও আশায় বুক বাঁধছে তিস্তা পাড়ের মানুষ। তারা মনে করছেন এই সফরে ৪৫ বছরের অমীমাংসিত পানি বন্টন চুক্তি আলোর মুখ দেখবে। ছিটমহল বাসীদের মত দুঃখ ঘুচবে তাদের। আর পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা বলছেন এখন পানি বন্টন চুক্তি ছাড়া তিস্তা পাড়ের কৃষি বাঁচানো সম্ভব নয়।

তিস্তার পানি বন্টন চুক্তি নিয়ে বাংলাদেশের সাথে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ও পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রীর মধ্যে আলোচনায় পার হয়েছে কয়েক বছর। এই সময়ে তিস্তা হারিয়েছে তার যৌবন। ১৯৯৩ সালে সেচ প্রকল্প শুরুর সময় গ্রীষ্ম মৌসুমে তিস্তার পানি থাকত সাত থেকে নয় হাজার কিউসেক। কিন্তু ভারত অংশে দেয়া বাঁধের কারণে দিনে দিনে পানি কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র চারশো কিউসেকে।

চাষীরা বলছেন অচিরেই পানি বন্টন চুক্তি না হলে নাব্যতা হারাবে তিস্তা। এতে চাষাবাদ বন্ধ হবার আশঙ্কা রয়েছে। তবে ফেব্রয়ারিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের খবর তৈরি হওয়ায় আশায় বুক বেঁধেছে এই অঞ্চলের মানুষ।

এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা বলছেন, দ্রুত পানির ন্যায্য হিস্যা না পেলে কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়নে যে তিস্তা সেচ প্রকল্প সুবিধা চালু করা হয়েছিল তা একদিন বন্ধ হয়ে নদীটি পুরো শুকিয়ে যাবে।

তিস্তায় স্বাভাবিক পানি প্রবাহ থাকলে পানি থাকবে এ নদীর আরও ২০টি শাখা নদীতে। পানি না থাকলে উত্তরাঞ্চলের প্রায় দুই কোটি মানুষের জীবন-জীবিকা হুমকির মুখে পড়বে।

শেয়ার করুন