Friday, March 10, 2017

আরবের নজদ থেকে বের হবে শয়তানের শিং তথা দ্বীন-মিল্লাত- মানবতা ধ্বংসকারী শয়তান - ইমাম হায়াত

 

“আরবের নজদ থেকে বের হবে শয়তানের শিং ও ভূমিকম্প ”
(এখানে শয়তান বাতেল-জালেম-পথভ্রষ্টকারী অর্থে, শিং আঘাতকারী অনিষ্টকর ক্ষমতাসীন অর্থে এবং ভূমিকম্প দ্বীন-মিল্লাত-মানবতার জন্য ধ্বংসাত্মক অর্থে) -আল হাদিস(বোখারী শরীফ ২য় খন্ড, ১০৫০ পৃষ্ঠা)

ঈমানের রক্ষাকারী এ পবিত্র হাদিস শরীফ, দ্বীন রক্ষাকারী এ মহান হাদিস শরীফ, হকের দিশারী এ আলোকময় হাদিস শরীফ, বাতেল থেকে উদ্ধারকারী এ রহমতময় হাদিস শরীফ। প্রকৃত পক্ষে সব সহী হাদিস শরীফও সরাসরি অহী। দয়াময় আল্লাহতাআলা ও তাঁর হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া ছাল্লাম দোজাহানে জীবনের সুরক্ষা ও সাফল্যের জন্য ঈমান দ্বীন দান করেছেন এবং একই সাথে তা হরণকারী জীবনের ক্ষতিকর শত্রু সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। ইসলামের ছদ্মনামেও কোরআনুল করীম হাদিস শরীফের অপব্যাখ্যা করে ঈমান বিণষ্ট ও দ্বীন বিকৃত করে যে জীবনের শত্রু বাতেল ফেরকা আবির্ভাব হবে এবং তা থেকে নিজেদের ও দ্বীন মিল্লাত মানবতাকে রক্ষায় এ হাদিস শরীফ জীবনের দিশা ও দায়িত্ত্বের নির্দেশিকা।

এ মহান হাদিস শরীফ এবং আরও অনেক হাদিস শরীফে ভবিষ্যতে ইসলামের নামে বেনামে কি কি প্রতারণা ধোকা বিপর্যয় ঘটতে পারে এবং তা থেকে কিভাবে সুরক্ষিত থাকতে হবে সে সম্পর্কে উদ্ধারের দিশা রয়েছে। উম্মতদেরকে যেন কোন বাতেল জালেম অপশক্তি ক্ষতি করতে না পারে, পথহারা ও বিচ্ছিন্ন করতে না পারে এবং সত্যের ধারা উৎখাত করে মানবমন্ডলীকে মিথ্যা আঁধারে বিণাশ করতে না পারে, সেজন্য ভবিষ্যৎবাণী হিসেবে এ হাদিস শরীফ ঘোষণা করেছেন রহমতের নবী মানবজীবনের পরম আপন ও উদ্ধারকারী আদি-অন্ত দৃশ্য-অদৃশ্য সর্বদৃষ্টি সর্ব জ্ঞানের মূল কেন্দ্র মহান প্রিয়নবী। দয়াময় আল্লাহতাআলা স্বয়ং কোরআনুল করীমে কোরআনুল করীমের অপব্যাখ্যাকারী দ্বীনের নামে বাতেল ফেরকা সম্পর্কে সুস্পষ্ট সতর্ক করেছেন এবং তা থেকে সুরক্ষার জন্য বারবার তাঁর হাবীব কেন্দ্রিক হয়ে থাকার তাঁর হাবীবের প্রেমভিত্তিক হওয়ার, তাঁর হাবীবের আপনদের তথা আহলে বায়েত খোলাফায়ে রাশেদীন মকবুল সাহাবায়ে কেরাম ইমামবৃন্দ ও আওলিয়া কেরামের পথে ও সাথে থাকার তাকিদ দিয়েছেন।

হক বাতেল পার্থক্যকারী এ হাদিস শরীফে বাতেলের ঠিকানাসহ বলে দেয়া আছে যা রিয়াদ নামধারী নজদ। নজদ থেকে নজদের দরিয়া এলাকা থেকেই বাতেল জালেম সালাফী মতবাদ অনুসারী ওহাবী মতবাদ উদ্ভব। সেখানেই তারা ১৭৪৪ সালে ব্যপক রক্তপাতের মাধ্যমে প্রথম ওহাবী রাষ্ট্র কায়েম করে এবং ১৮১৮ সালে উৎখাত হয়। ১৮২৪-এ পূণঃ দখল করে ১৮৯১-এ আবার বিতাড়িত হয়। আবার ১৯০২ সালে নজদে পূণঃ ওহাবী রাষ্ট্র করে সেখান থেকে আগ্রাসন শুরু করে ১৯২৫ থেকে ভয়ংকর গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞের মাধ্যমে অন্যান্য অপশক্তির সহায়তায় আল আরব জবর দখল শুরু করে ১৯৩২-এ কেবলাভূমিকে গোত্রবাদী ওহাবীবাদী “সৌদী আরব” ঘোষণা করে, যা কলেমার চেতনা উৎখাত ইসলাম ও মুসলিম মিল্লাতের জন্য মৃত্যু সমতুল্য।

আমরা যেন বাতেলের ধ্বংসের গর্তে পড়ে দোজাহানের বিণাশ না হই, সালাফী ওহাবী ইত্যাদি বাতেল ফেরকাকে ইসলাম মনে না করি, সতর্ককারী আয়াত শরীফ ও হাদিস শরীফে সে দিশা সুরক্ষা দেয়া হয়েছে। দয়াময় আল্লাহতাআলার প্রতি অশেষ শোকরিয়া সিজদাহ এবং প্রাণপ্রিয় প্রিয়নবীর প্রতি অনেক অনেক সালাতু সালাম।

- ইমাম হায়াত আলাইহি রাহমা



শেয়ার করুন