Wednesday, March 15, 2017

দিনাজপুরে পীরের আস্তানায় জোড়া খুন


সারাদেশঃ
ধর্মীয় মতাদর্শীয় বিরোধে দিনাজপুরের পীর ফরহাদ ও তার সহযোগী খুন হতে পারে বলে সন্দেহ করেছে পুলিশ। এজন্য নজরদারিতে আছেন এক খাদেম এবং মুরিদ। এদিকে পীরের আরেক খাদেম জানিয়েছেন, হত্যার পর থেকে নিহত সহযোগীর নব বিবাহিত স্বামী সিরাজুল ইসলামকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা।

দৌলা গ্রামের বাসিন্দাদের মতে ফরহাদ চৌধুরী ছিলেন বড়পীর হযরত আবদুল কাদের জিলানীর অনুসারী। কুড়িগ্রামের পীর ইসাহাক আলীর মাধ্যমে ফরহাদ চৌধুরী বড়পীরের মুরিদ হন। কিন্তু মতবিরোধের কারনে বেশ কিছুদিন থেকেই ইসাহাক আলীর সাথে তার যোগাযোগ ছিল না। আর তার অনুসারীরা বলছেন, বৃহস্পতিবার সিরাজগঞ্জের ভক্ত সিরাজুল ইসলামের সাথে ফরহাদ চৌধুরীর সহযোগী রুপালী বেগমের বিয়ে হয়। পরে সোমবার রাত নয়টার দিকে ফরহাদ হোসেনের মৃতদেহ দেখতে পান দরবার শরীফের খাদেম সাইদুর রহমান ও মুরিদ সুফী বেগম। পাশেই পড়েছিল রুপালী বেগমের মৃতদেহ। কিন্তু রুপালীর স্বামী সিরাজুল ইসলামের খোঁজ কেউ দিতে পারছেনা।

হত্যাকান্ডের পরপরই টানা এক ঘন্টা বিদ্যুতের সরবরাহ ছিল না দরবার এলাকায়। এলাকাবাসীর অভিযোগ, বিদ্যুত না থাকাটা ছিল খুনীদের পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ। এদিকে হত্যাকান্ডের পর ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। পরেই দিনাজপুরের সহকারী পুলিশ সুপার জানান, তদন্তের ক্ষেত্রে ধর্মীয় বিরোধকেই প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে। বোচাগঞ্জের দৌলা গ্রামে ২০১০ সালে কাদরিয়া মোহাম্মদীয়া দরবার শরীফ প্রতিষ্ঠা করেন ফরহাদ হোসেন চৌধুরী। এর আগে তিনি বিএনপি রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন।

শেয়ার করুন