Tuesday, March 14, 2017

রোহিঙ্গা অঞ্চল জনশুন্য করবে মিয়ানমার সরকার: জাতিসংঘ বিশেষ দূত



বিশেষ প্রতিনিধি:
মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গা অঞ্চল জনশুন্য করতে চাইছে বলে জানিয়েছ জাতিসংঘের বিশেষ দূত ইয়াংঘি লি।  জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনে বিশেষ দূত জানান, রোহিঙ্গা নির্যাতনের যে চিত্র  ফুটে উঠে এসেছে তাতে বুঝা যাচ্ছে মিয়ানমার সরকারের এমন উদ্দেশ্যের রয়েছে। তিনি রাখাইন রাজ্যে উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের আহ্বানও জানিয়েছেন। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সীমান্ত চৌকিতে গত ৯ অক্টোবর সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয় ৯জন পুলিশ কর্মকর্তা। এর জের ধরে রোহিঙ্গাদের নিমূলে ব্যাপক অভিযান শুরু করে দেশটির সশস্ত্র বাহিনী ও কট্টর পন্থি বৌদ্ধরা। শত শত মানুষকে হত্যা নারীদের ধর্ষণ ও জ্বালিয়ে দেওয়া হয় বহু রোহিঙ্গা মুসলমানদের ঘরবাড়ি। প্রাণ বাঁচাতে দেশ ছেড়ে বাংলাদেশে ঢুকে পড়ে প্রায় ৭০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা। 

এসব ঘটনার পর প্রথমে মিয়ানমার ও পরে বাংলাদেশ সফর করেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত ইয়াংঘি লি। তিনি দুই দেশের রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলেন। এরপর গতকাল সোমবার তিনি মানবাধিকার কাউন্সিলে প্রতিবেদন দিয়েছেন। রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতির বিষয়ে মিয়ানমার সরকার বেশ কয়েকটি নামমাত্র তদন্ত কমিশন করলেও তাতে আসল নির্যাতনের চিত্র ফুটে ওঠেনি বলে তিনি ব্যাখা করেন। জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বে গঠিত কমিশনও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা তদন্তের সুষ্ঠ সুযোগ পায়নি বলে জানান ইয়াংঘি লি। হত্যা ও গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা দ্রুত স্বাধীন ও নিরপেক্ষভাবে তদন্তের ক্ষেত্রে জাতিসংঘের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত 'কমিটি অব ইনকোয়ারি' গঠনের দাবি জানিয়েছেন ইয়াংঘি লি। সাম্প্রতিক সহিংসতা ছাড়াও তিনি ২০১২ ও ২০১৪ সালের সহিংসতা তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, যদি দ্রুত ব্যবস্থা না নেওয়া হয়। তাহলে সেখানে মারাত্মকভাবে মানবাধিকার লঙ্গন হবে।

শেয়ার করুন