Sunday, April 16, 2017

দাগনভূঞা সোনাগাজী কে হচ্ছেন নোকার মাঝি




দাগনভূঞা সোনাগাজী কে হচ্ছেন নোকার মাঝি
আঃ লীগের ৭ প্রার্থীর নির্বাচনী দৌড় ঝাপ শুরু জাপার ২ প্রার্থী, বি.এন.পি নিষ্ক্রিয়

সিরাজ উদ্দিন দুলালঃ দাগনভূঞা ও সোনাগাজী উপজেলা নিয়েই ফেনীর ৩ আসন, এই আসনে আঃলীগের ৭ প্রার্থীর নির্বাচনী মাঠের আওয়াজ ও দৌড় ঝাপ শুরু করে দিয়েছে। জাপার ২ প্রার্থী দলীয় কোন্দলের জন্য কার্যক্রম ধীরগতি। বিএনপি কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে।
জানাযায়- ছোট ফেনী ও মহুরী নদীর কোল ঘেসেই একাদিক চরাঞ্জল নিয়েই সোনাগাজী উপজেলায় রয়েছে ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এতে মোট ভোটারের সংখ্যা রয়েছে ১৭৫৫৮৫, পুরুষ ৯১০৫০ মহিলা ভোটার ৮৪৫৩৫ অপর দিকে ঘনবসতি উন্মত ৮৯টি ইনিয়নের ১টি পৌরসভা নিয়ে দাগনভূঞা উপজেলা এই কানে হাল নাগাদ মোট ভোটার রয়েছে ১৮৩২৮৫ পুরুষ ভোটার ৯৩২১৪৬ মহিরা ভোটার ৯০০৬৮ উভয় উপজেলা ১৮টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার মোট ভোটার ৩৫৮৮৬৯। এই আসনে বি.এন.পি প্রার্থী মরহুম মোশারফ হোসেন সাবেক সংসদ সংদস্যের মৃত্যুর পর ২০১৪ জাতীয় নির্বাচনে মহাজোট একক প্রার্থী জাপা চেয়ারম্যান প্রচার ও প্রকাশনার বিষয়ক উপদেষ্টা রিন্টু আনোয়ার অপর দিকে স্বতন্ত প্রর্থী রহিম উল্যাহ, রিন্টু আনোয়ার উভয় উপজেলা ও পৌর সভার জাপা নেতা কর্মীদের সাথে সম্মন্বয় হীনতা এবং মোহাজোট অন্যতম দল আঃলীগের জেলা উপজেলা নেতাদের সাথে নির্বাচনের কার্যক্রমের সিদ্ধান্ত গুলো ও নির্দেশনায় গুরুত্ব না দেয়ায় স্বতন্ত প্রার্থী জয়ী হলেও অদ্য পর্যন্ত সোনাগাজী ছাড়া দাগনভূঞা উপজেলা ও মাঠের কার্যক্রমে অংশ গ্রহণ নেই বললেই চলে।
স্থানীয় সংসদের শুন্যতায় আগামী জাতীয় নির্বাচনকে লক্ষ করে শুরু হয়ে যায় আঃলীগের একাধিক প্রাথীর নির্বাচনী কৌশলগতভাবে প্রচার প্রচানা সভা সমাবেশ।
ফেনী জেলা যুবলীগের সভাপতি দাগনভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান দিদারুল কবির রতন রাজনৈতিক ভাবে কার্যক্রমের কারনে পুরো আসনকে টার্গেট করে চষে বেড়ানোর পর গত ০৯ এপ্রিল ২০১৭ দিকে ৩ ঘটিকায় তার নিজ এলাকা ৪নং ইউনিয়নের সেকান্দরপুর গ্রামের সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয় মাঠে দলীয় নেতা কর্মীদের উপস্থিতিতে নির্বাচনি প্রার্থীতার প্রকাশ হয়। তার ঘনিষ্টজন সূত্রে জানান, দলীয় সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান রেখেই আগামী দিনের পথ চলা।
অপর দিকে ঢাকার উত্তরের যুবলীগের সাবেক সভাপতি বর্তমান যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবুল বাশার ২০১৪ সালের নির্বাচনী দলীয় প্রার্থী থাকলেও কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে মহাজোটের প্রার্থীকে ছেড়ে দেয়ার পর এই বার  আর ছাড় দেয়া হবে না মর্মে কোমর বেঁধে মাঠে কৌশলগত ভাবে প্রচার প্রচানায় নেমে পড়েছেন। দলীয় নেতা কর্মীদের অসুস্থ্যতার খোঁজ খবর, মৃত্যুর জায়নাযায়, ফুটবল, ক্রিটেকের খেলা, ওয়াজ মাহফিলে, স্থানীয় নিজ কলেজ ও দাগনভূঞা বালিকা বিদ্যালয়ের সভাপতির সুবাদে ছাত্রীদের অভিভাবক বৈঠক, সম্প্রতি বজ্রপাতে দাগনভূঞার বালিকা বিদ্যালয়ের ১৩জন আতংকের আহত ছাত্রীদের পাশে, ২০০৫ সালের নির্বাচনের দলীয় কৌন্দলে হেরে গিয়ে সৃষ্ঠ ক্ষোভের কিছুটা রেশ কাঠিয়ে পুনরায় মাঠে। অন্যদিকে আঃলীগের কেন্দ্রীয় সহ সম্প্রাদক জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন উভয় উপজেলায় বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ এবং অনুগত নেতাদের সাথে যোগাযোগ করছেন ও নির্বাচন করার প্রার্থীতা প্রকাশ করছেন। সম্প্রতি দাগনভূঞা ৮নং ইউনিয়নের জঙ্গিবাদ, মাদক ও ইভটেজিং প্রতিরোধ মতবিনিময় সভায় লিপটনও অতিথি ছিলেন। যদিও চেয়ারম্যান বার বার স্থানীয় জনতা ও অতিথিদের উদ্দেশ্যে বলছেন সম্পূর্ন কাঁকতালিয় ভাবে লিপটন আপনাদের মাঝে। সভা শেষে নাম সংম্ভলিত ক্রেস্ট প্রদানেও নাটকিয়। কাঁকতালিয় ও নাটকিয় ভাবে চলছে নির্বাচনী প্রচারের কৌশল। এদিকে মুক্তিযোদ্ধা ও মার্কেনটাইল ব্যাংক পরিচালক আকরাম হোসেন হুমায়ুন জেলা কমিটির সহ সভাপতি থাকলেও তারই সহযোগীতা নেতা সৃষ্টি ও নেতা অপসারণ, ছোট বড় অনেক নেতা সহ ও ছোট বড় অনেক জনসভা ও মুক্তিযোদ্ধাদের জাতীয় সকল কার্যক্রমে সহযোগীতা থাকলেও কোন নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাননি। একটি সূত্র জানান, তিনিও এই বার মনোনয়নের জন্য লড়বেন। উল্লেখ্য তিনি ১৯৯৬সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী কাপ-পিরিজ মার্কায় নিয়ে নির্বাচন করেছিলেন।
এছাড়া জাপান আঃলীগের সভাপতি সামছুল আলম ভুট্টু উভয় উপজেলার স্থানীয় নেতাদের সাথে যোগাযোগ করছেন। স্থানীয় অনেক নেতাদের নিয়ে গাড়িতে ঘুরে উভয় উপজেলা চষে বেড়াচ্ছেন ক্ষনে ক্ষনে। এবং স্থানীয় জনতার মাঝে সাবেক সেনা কর্মকর্তা মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীও নির্বাচন করবেন বলে এলাকায় গুনঞ্জন শুনাযাচ্ছে। সম্প্রতি রোকেয়া প্রাচিও সোনাগাজীর বিভিন্ন সভা সমাবেশ ও র‌্যালেতে অংশ গ্রহণ করে অপ্রকাশ্যে প্রার্থীতার খবর জানিয়ে দিচ্ছে।
বি.এন.পি প্রার্থীদের কোন কার্যক্রম ও ভূমিকা নাই, অনেকেই কেন্দ্রের দিকে চেয়ে আছেন। কেন্দ্রের নির্দেশনা পেলে মাঠে নামবে। চিন্নবিহীন বি.এন.পি আগোচালো থাকলেও একাধিক নেতা জানান সুষ্ট নির্বাচন, ভোটের ডাক, মার্কা হলেই যতেষ্ট, সবমিলে আঃলীগের ৭ প্রার্থীর দৌড় ঝাপ শুরু জাপার ১৮টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার কমিটি গঠন করার পর দলীয় কোন্দলে তাদেরও প্রকাশ্যে অপ্রকাশ্যে দুই জন প্রার্থী রয়েছে। ২ দলের অনুপাতে বি.এন.পি নিষ্ক্রিয়  রয়েছে।


শেয়ার করুন