Wednesday, May 24, 2017

ফেনী আলীয়া কামিল মাদ্রাসার শিক্ষক শূন্যতায় ও প্রর্যাপ্ত একাডেমিক ভবন না থাকার কারণে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত


মো. ইউনুছ ভূঞাঁ সুজন,ফেনী প্রতিনিধি:
ফেনী  আলীয়া কামিল মাদ্রাসার শিক্ষক শূন্যতায় ও প্রর্যাপ্ত একাডেমিক ভবন না থাকার কারনে শিক্ষা  কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। ফেনী আলীয়া মাদ্রাসা ১৯২৩ প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠা লগ্ন  থেকে অত্র প্রতিষ্ঠানটি অত্যান্ত নিষ্ঠার উচ্চ শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। বর্তমানে প্রায় ৩৫০০ হাজার ছাত্র-ছাত্রী অধ্যায়নরত রয়েছে বলে জানা যায়। এছাড়াও মহিলাদের জন্য মহিলা শিক্ষক দিয়ে পাঠ দান করানোর ব্যবস্থা রয়েছে বলে জানা যায়। 

একটি প্রশাসনিক ভবন ও ৩টি একাডেমিক ভবন নিয়ে ফেনী সরকারী  আলীয়া মাদ্রাসার উচ্চ শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত থাকলেও নতুন ভাবে অনার্স কোর্স চালু হওয়ায় শিক্ষা ব্যবস্থার অবকাঠামো কার্যক্রম ও উচ্চ শিক্ষার মান বৃদ্ধি পায়।  কিন্তুু একাডেমিক ভবনের ও শিক্ষক শূন্যতার অভাবে  উচ্চ শিক্ষা কার্যক্রম দারুন ভাবে ব্যাহত হচ্ছে বলে জানা যায়। 

মাদ্রাসা অফিস  সূত্রে জানা যায়, ফেনী  আলীয়া কামিল মাদ্রাসা অধ্যক্ষ ও উপধ্যক্ষ সহ ৩৫টি পদের বিপরীতে ৯টি পদ শূন্য রয়েছে। আরবী বিভাগে সহযোগী অধ্যাপক ৪টির বিপরীতে ১টি, কৃষি বিভাগে সহকাররী শিক্ষক হিসাবে ১টি পদের বিপরীতে ১টি শূন্য পদ রয়েছে, সহকারী শিক্ষক  কম্পিউটার ১টি পদের বিপরীতে ১টি, কামিল কোর্সে প্রতিটি বিষয়ে নিয়ম অনুযায়ী একজন করে শিক্ষক থাকার কথা থাকলেও ২টি পদেই শূন্য রয়েছে। এছাড়াও এবতেদায়ী শাখার প্রধান শিক্ষকের ১পদের বিপরীতে ১টি পদ ও শূন্য রয়েছে অনেক দিন যাবত। জুনিয়র শিক্ষক ১টি, জুনিয়র মৌলভী ১টি, ও একজন ক্বরীর পদ খালি রয়েছে।

ফেনী আলীয়া কামিল মাদ্রাসার ভবন সংকট ও শিক্ষক শূন্যতা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ফেনী  আলীয়া মাদাসার অধ্যক্ষ  মো.মাহমুদুল হাসান জানান, একাডেমিক ভবন প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল হওয়ায় স্নাতক (সম্মান) পর্যায় অনার্স অাল কোরআন ও ইসলাম শিক্ষা বিষয়ে আলাদা ক্লাস নেওয়া খুবই কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, একদিকে শিক্ষক শূন্যতা অপর দিকে একাডেমিক ভবনের স্বল্পতা আমাদের উচ্চ শিক্ষা কার্যক্রম কিছুটা ব্যহত। তিনি আরো বলেন, গত মাসের কার্যবিবরনীসহ যাবতীয় সমস্যা শিক্ষামন্ত্রনালয়কে অভিহিত করা হয়েছে। ইতি মধ্যে ফেনী -২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি আমাদেরকে আসস্ত করেছেন ২টি একাডেমিক ভমন নির্মানের। আমরা অত্যান্ত খুশি ও সাধুবাদ জানাই এমপি নিজাম হাজারীকে। আমাদের দীর্ঘ দিনের কষ্ট লাগভ হবে ওনার দেওয়া প্রতিস্থতি বাস্তবায়ন হলে।

বর্তমানে খন্ডকালীন ৯জন শিক্ষক দিয়ে সম্পূর্ন  প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম চালিয়ে চালিয়ে যাচ্ছি। এতিম ও প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রীদের কেমন সুযোগ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে এমন বিষয়ে অধ্যক্ষের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  প্রতিবন্ধী ও এতিমদের মধ্যে  সকল রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা অব্যাহত রেখেছেন। অামরা এরি ধারাবাহীকতায় সকল এতিম ও প্রতিবন্ধি ছাত্র-ছাত্রীদের কে বিনা খরচে পড়া -লেখার থরচ বহন করি ও তাদেরকে বইসহ যাবতীয় শিক্ষা উপকরন দিয়ে থাকি। এবং তাদের কে হোস্টেলে থাকার ব্যবস্থা করে দিয়ে থাকি। 

প্রতিষ্ঠানটির সফলতার কথা জানতে চাইলে ফেনী সরকারী আলীয়া মাদ্রাসার  অধ্যক্ষ মাঃ মোঃ মাহমুদুল হাসান বলেন, ০১-০২-১৯৯৯ইং থেকে ০৫-০৪-২০০২ পর্যান্ত আমি হাদীস বিভাগে সহকারী অধ্যাপক  হিসাবে যোগদান করি,২৫-০২-২০১৩ইং সালে আমি অধ্যক্ষ হিসাবে যোগদান করে বর্তমানে কর্মরত রয়েছি। প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নায়ন সহ উচ্চ শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। 

উল্লেখ্য ২০১৭ইং সালে দাখিল পরীক্ষায় ১৭২ জন অংশ গ্রহন করে ১৫৫জন পাশ করে। পাশের হার ৯২.১২শতাংশ। অামরা ফেনী জেলার আওতায় দাখিলের ফলাফলের মাধ্যমে সফলতার সাথে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করি।

শেয়ার করুন