Thursday, June 8, 2017

ফেনীতে কাচা বাজার, মাছ মাংশসহ বিভিন্ন দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্বগতি


মোঃ ইউনুছ ভূঞাঁ সুজন, ফেনী প্রতিনিধি:
ফেনীতে কাচা বাজারসহ বিভিন্ন দ্রব্য মূল্যের দাম চওড়া। সরজমিনে গিয়ে বিভিন্ন কাচা বাজার ও মাছ মাংশে, মুদি মালের বাজার গুরে দেখা য়ায়, অধিকাংশ  কাচা বাজারসহ দ্রব্যসামগ্রী সাধারন ক্রেতাদের নাগারের বাহিরে, যা শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া সাধারন  মানুষের কাছে সোনার হরিন হয়ে দাড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাজারে উপস্থিত অনেক ক্রেতা।

আজকের মুদিমালের বাজার দর গত সাপ্তাহ থেকে কিছুটা উর্ধ্বে, লম্বা আলু ১৪-১৬টাকা,  গত সাপ্তাহ ১৩-১৪টাকা, বেড়েছে কেজি প্রতি ২টাকা হারে  গোল আলু ১২-১৪টাকা, গত সাপ্তাহ ছিল ১১-১২টাকা প্রতি কেজি হারে বেড়েছে ২টাকা হারে, ছোলা ৮০-৮২টাকা,খোরা আটা ২২-২৪টাকা, প্যাকেট ৩০-৩২টাকা, খোলা ময়দা ৩০-৩২টাকা, প্যাকেট ৪২-৪৪টাকা, প্রতি কেজীতে ২টাকা হারে বেড়েছে। পেয়াজ ১৮টাকা, রোশন দেশী ছোট ৭০টাকা, আমদানিকৃত ও দেশী বড় রোশন ১০০ টাকা, আদা ৬৫-৭০টাকা, চিনি ৭২-৭৪টাকা, যা গত সাপ্তাহ থেকে প্রতি কেজি হারে ৫টাকা হারে বেড়েছে। খোলা তেল ৭০-৭৫টাকা,গত সাপ্তাহ ছিল ৭৫-৮০টাকা যা প্রতি কেজি হারে ৫টাকা কমেছে। ঘোটা হলুদ ১০০-১০৫টাকা গুড়ু হলুদ ১৫৫-১৬০টাকা, মরিচ ১১৫-১২০টাকা, গুড়ু মরিচ ১৮০-২০০টাকা যা গত সাপ্তাহ প্রতি কেজি হারে ৫টাকা হারে বেড়েছে। জিরা ৩৬৫-৩৮০টাকা, ধনিয়া ৯০-১০০টাকা যা গত সাপ্তাহ থেকে প্রতি কেজি হারে ৪টাকা বেড়েছে। শশা ২৫-২০টাকা, কাকরুল ৩৫-৩০টাকা, ঢ়েড়স ৩৫-৩০টাকা,বেগুন ৫০-৪৫টাকা, জালি ২৫-২০টাকা, কাচা ৪০-৩৫টাকা, যা গত সাপ্তাহ থেকে প্রতি কেজী হারে ৫টাকা কমেছে।


এদিকে শিং মাছ ৪৫০-৫০০টাকা, রুই ২০০-২৫০টাকা ,  তেলাপিয়া ১৫০-১৬০টাকা, ও জাতীয় মাছ ইলিশ ৬৫০-৭০০টাকা  যা গত সাপ্তাহর বাজার মূল্যর সাথে অপরিবর্তনীয় অবস্থানে রয়েছে। অপরদিকে খাসির মাংশ ৬০০-৬৫০টাকা ও গুরুর মাংশ ৫৭০-৫৭৫টাকা কেজি হারে বিক্রি হচ্ছে যা গত সাপ্তাহ থেকে প্রতি ১০টাকা হারে বৃদ্ধি পায় বলে নাম প্রকাশে অনইচ্ছুক ক্রেতা সাধারন।
 
এদিকে স্বর্নের বাজার গুরে দেখা যায়,  ২২ক্যারেট ৪২হাজার ৫০০টাকা ও ২১ক্যারেট স্বর্ন ৪১ হাজার টাকা প্রতি বরি বিক্রি হচ্ছে যা গত সাপ্তাহের বাজার দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

মুদি ও পাইকারী দোকানদার মা-মনি ষ্টোরের মালিক সমির পাল বলেন, ট্রান্সপোট খরচ সহ অন্যান্য ব্যায়ের কারনে দ্রব্যমূল্যের দাম কিছুটা ভাড়ে বলে তিনি জানান।

দ্রব্যমূল্যেরউর্ধ্ব গতি ও বাজার ব্যবস্থার নানান সমস্যা নিয়ে ফেনী ব্যাবসায়ি সমিতির সভাপ্রতি মুশারুফ হোসেন ভূঞাঁ কাছে জানতে তিনি বলেন, এক শ্রেনীর কিছু অসাধু ব্যাবসায়ীদের মাত্রাহীন মুনাফা লাভের হাসিলের জন্য তারা আইনের তোয়াক্কা না করে, নিজেদের মন গড়া মত বাজারের দ্রব্য সামগ্রীর দাম কষা-কষির মাধ্যমে দ্রব্য মূল্যের বৃদ্ধি করে থাকে।  তিনি আরো জানান এ সমস্ত অসাধু ও অধিক মুনাফা লোভী ব্যাবসায়ীদের কে নির্বাহী ম্যাজেস্টেটের ভাম্যমান মোবাইল কোর্ডের মাধ্যমে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে তিনি জান।

অপরদিকে ফেনী ব্যবসায়ী সমিতির সহ-সভাপতি ও ফেনী জুয়েলারী সমিতির যুগ্ন- সাধারন সম্পাদক কাজী আরিফ রোবেল  জানান,  যারা অসৎ উপায় অবলম্বন করে অধিক মুনাফা হাসিলের চেষ্টা করবে তাদের কে ভ্রাম্যমান মোবাইল কোর্ডের মাধ্যমে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। রমজান মাস জুড়ে নির্বাহী ম্যাজেস্টটের মাধ্যমে ভ্রাম্যমান মোবাইল কোর্ড চালু থাকবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে প্রতিনিয়ত প্রশাসনের সহায়তা কামনা করে আসতেছি। আশা রাখছি যে প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্টটগন আমাদের কে সহায়তা দান করবে।

শেয়ার করুন