Monday, December 24, 2018

ফেনী-৩ আসনে বাঘ-সিংহের নির্বাচনী প্রচারণা জমে উঠেছে


ফেনী প্রতিনিধি:
ফেনী-৩ ( দাগনভূইয়া-সোনাগাজী)  আসনে নির্বাচনী মাঠে ইনসানিয়াত বিপ্লব সমর্থিত স্বতন্ত্র সিংহ প্রতীকের প্রার্থী হাসান আহমদ ও প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল (পিডিপি'র) প্রার্থী মো. গোলাম হোসেনের বাঘের প্রচারণা জমে উঠেছে।

ফেনী-৩ আসনে তারা দুইজনই তরুণ প্রার্থী। এছাড়া তারা এবারই প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। দুজনই নবীন হওয়ায় ভোটের মাঠে তাঁদের নিয়ে  আলোচনার ঝড় উঠেছে নির্বাচনী এলাকায়। ইনসানিয়াত বিপ্লব সমর্থিত প্রার্থী হাসান আহমদ এর আগে কখনও কোনো নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেননি পাশাপাশি বাঘের পিডিপির মো. গোলাম হোসেনও  কোনো নির্বাচনে অংশ নেননি। তাই তারা নির্বাচনী এলাকায় একেবারেই আনকোরার প্রার্থী।

তবে দুই জনের মধ্যে হাসান আহমদ নেতাকর্মীদের নিয়ে তার নির্বাচনী এলাকায় প্রত্যেক ভোটারের ধারে ধারে গিয়ে ভোটারদের কাছে ভোট চাচ্ছেন এবং ছোট বড় সকল বাজারে গণসংযোগ করে যাচ্ছেন তিনি।
এদিকে মো. গোলাম হোসেন থাকেন ঢাকা শহরে, তিনি ভোটারদের কাছে ভোট চাইতে ছুটে চলছেন। এদিকে মানবিক, অসাম্প্রদায়িক, সর্বজনীন ও জ্ঞানের মুক্ত প্রবাহ জারি রাখতে সিংহ মার্কা ভোট দিতে ভোটারদের আহবান জানান হাসান আহমদ। হাসান আহমদ ভোটারদের ধারে ধারে গিয়ে ভোটারদের বলেন, আপনারা মানবতার পক্ষে একটি ভোট দিন, শান্তির পক্ষে একটি ভোট দিন, সব মানুষের রাষ্ট্র গড়তে একটি ভোট দিন, গোষ্ঠিবাদী রাষ্ট্রকে বাদ দিতে একটি ভোট দিন, রাষ্ট্র সবার গড়তে আপনারা নিজে নিজেকে  একটি ভোট দিন।

এইভাবে তিনি সব মানুষ ভাই ভাই মানবতার দুনিয়া চাই এ স্লোগানকে সামনে রেখে সবার কাছে ভোট চাইতে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ছুটে চলছেন।

অন্যদিকে মো. গোলাম হোসেন বলেন, আমি যদি নির্বাচিত হই ফেনী-৩ আসন থেকে সন্ত্রাস ও মাদক নিমূর্লে কাজ করবো। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দুই উপজেলার উন্নয়নে কাজ করবো।

দুই তরুণ প্রার্থীর বিষয়ে এলাকার ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ভোটারা বলেন, দুই তরুণ প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নেওয়া আমরা অনেক খুশি। আমরা আশা করি তাদের মধ্যে যে নির্বাচিত হবে তিনি এলাকার উন্নয়নকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করবেন। যেহেতু তারা তরুণ তারা মাদক ও সন্ত্রাস দূর করতে কাজ করবেন। সকল মানুষের অধিকার যাতে অক্ষুণ্ণ থাকে তার দিকে নজর দিবেন। দুই এলাকার শান্তিতে যাতে মানুষ বসবাস করতে পারে তার জন্য কাজ করবেন। আমরা যতটুকু জানি তারা দুইজনই অত্যন্ত সৎ ও শিক্ষিত তারা নির্বাচিত হলে এলাকার উন্নয়ন হবে বলে আমরা আশা করি। 

এদিকে দুজনই তরুণ ভোটারদের প্রাধান্য দিয়ে নানা শান্তি, নিরাপত্তা ও উন্নয়নমূলক প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাচ্ছেন। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দুই প্রার্থীর সমর্থকেরা প্রতিটি গ্রামে গ্রামে গিয়ে ভোটারদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছেন। এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, বিগত দিনগুলোয় মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে তাঁদের ভোট দিতে পারেননি। এবার তাঁরা নিজের ভোট নিজে দিতে চান। এতে ইসির সব ধরনের সহযোগিতাও চেয়েছেন ভোটাররা। ইসির সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করছে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ। এখানে ইসির ভূমিকা সবচেয়ে মূখ্য বিষয়। ফেনী-৩ আসনে দুই তরুণ প্রার্থীর প্রচারণায় বেশ জমে উঠেছে এবং যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয় তারা দুইজনই নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।

শেয়ার করুন