Thursday, September 19, 2019

ফেনীতে ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী নিজেই বিয়ে ভেংগে দিলো

স্টাফ রিপোর্টার-ফেনীতে বাল্যবিবাহর হাত থেকে রক্ষা পেতে বাড়ী থেকে পালিয়ে থানায় আশ্রয় নিলো শর্শদী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর এক ছাত্রী।বুধবার বিকেলে সদর উপজেলার শর্শদী ইউনিয়নের অাবুপুর গ্রামের ইশরাত জাহান মিম (১৫) ফেনী মডেল থানায় হাজির হলে পুলিশ তার মা ও বাবাকে খবর দিয়ে তার পূর্ণ বয়স হওয়ার আগে বিয়ে না দিতে পরিবারকে শতর্ক করে দিয়ে বাড়ীতে পৌছে দেয়।

পুলিশ জানায়,গেলো কয়েকমাস ধরে নবম শ্রেনীর ছাত্রী মিমকে তার পরিবার বিবাহ দিতে চাপ দিচ্ছিলো।পরে গত সোমবার কিশোরিটি বাড়ী থেকে পালিয়ে একই এলাকায় তার বান্ধবীর বাড়ীতে আশ্রয় নেয়।একপর্যায় আজ বুধবার বিকেলে সহপাঠিরা সহ মেয়েটি থানায় হাজির হলে পুলিশ তার পরিবারকে খবর দেয়।পরে পরিবারের সদস্যরা থানায় আসে।এসময় মেয়েটির পড়া লেখা চালানোসহ ১৮ বছর পূর্ন হওয়ার আগে বিয়ে না দিতে শতর্ক করে দেয় পুলিশ।

কিশোরির বাবা মির হোসেন জানান, মেয়ে ইসরাত জাহান রাগ করে বান্ধবীর বাড়ীতে চলে যায়।তিনি পেশায় বিল্ডিং কনট্রাক্টরের কাজ করেন।তার দুই মেয়ের মধ্যে ইশরাত বড় মেয়ে।তাকে বকাঝকা করায় সে বাড়ি থেকে চলে যায়।এসময় তিনি পড়াশুনা সহ ১৮ বছরের আগে মেয়েকে বিয়ে দিবেন না বলে প্রতিশ্রুতি দেন ।ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, বাল্যবিবাহ একটি সামাজিক ব্যাধি, একটি সুস্থ জাতি পেতে প্রয়োজন একজন শিক্ষিত মা তাই বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে কিশোরির পরিবারকে অবহিত করা হয়। পরে তার বাবা ভুল বুঝতে পারেন এবং মেয়েকে পড়ালেখা করিয়ে উপযুক্ত বয়সে বিয়ে দিবেন বলে অঙ্গীকার করলে বাবা,মা সহ মেয়েটিকে বাড়ী পৌছে দেয়া হয়।

শেয়ার করুন